পাতা:সিরাজদ্দৌলা - অক্ষয়কুমার মৈত্রেয়.pdf/৩৯১

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা হয়েছে, কিন্তু বৈধকরণ করা হয়নি।
৩৭৭
রাজা মোহনলাল।

সিরাজদ্দৌলাকে কারারুদ্ধ করিয়া রাজকোষ হস্তগত করিবার উপদেশ দান করেন।[১]

 মীরজাফর রাজধানীতে শুভাগমন করিবামাত্র শুনিতে পাইলেন যে, শিকার হাতের বাহির হইয়া গিয়াছে! তিনি কি আর করিবেন? অবিলম্বে হিরাঝিলের শূন্য রাজসিংহাসন অধিকার করিয়া সিংহাসনাধিপতি সিরাজদ্দৌলাকে কারারুদ্ধ করিবার জন্য চারিদিকে লোক লস্কর প্রেরণ করিতে আরম্ভ করিলেন।

 মীরজাফরের ভ্রাতা মীর দাউদ রাজমহলের ফৌজদার ছিলেন। মীরকাশিম তাঁহার অধীনে সেনাচালনা করিতেন। মীরকাশিম এবং মীর দাউদের উপর সিরাজদ্দৌলার পশ্চাদ্ধাবনের আদেশ হইবামাত্র তাঁহারা মুরশিদাবাদ হইতে রাজমহল পর্যন্ত সমস্ত গ্রাম নগর তন্ন তন্ন করিয়া অনুসন্ধান আরম্ভ করিলেন। বেগমমণ্ডলীর রমণীগণ কারারুদ্ধ হইলেন; সিরাজের অজাতশ্মশ্রু কনিষ্ঠ সহোদর মিরজা মেহেন্দী আলী রুদ্ধ হইলেন; মহারাজ মোহনলাল কারারুদ্ধ হইলেন;—কিন্তু সিরাজদ্দৌলার আর কোনরূপ সন্ধান মিলিল না।

 মহারাজ মোহনলাল অমিতপরাক্রমে সিরাজদ্দৌলার সিংহাসন রক্ষা করিতে গিয়া পলাশির যুদ্ধে গুরুতররূপে আহত হইয়াছিলেন; তথাপি তিনি আহত-কলেবরে সিরাজদ্দৌলার পার্শ্বরক্ষার জন্য মুরশিদাবাদে ছুটিয়া আসিয়াছিলেন। রাজধানীতে আসিয়া সিরাজদ্দৌলার পলায়ন সংবাদে মন্ত্রণাকুশল মোহনলাল সিরাজের গন্তব্য পথ ও গুপ্ত উদ্দেশ্য সহজেই

  1. (The Colonel) advised him to proceed immediately to the city, and not to suffer Suraja Dowla to escape, nor his treasures to be plundered.-Orme, ii. 178.