পাতা:Vanga Sahitya Parichaya Part 1.djvu/২৩৩

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শিৰেৰ গল । শূণ্য-পুরাণে শিবের গান। শিবের গান–রামাই পণ্ডিত—খৃঃ ১০ম-১১শ শতাব্দী। মহাযান সম্প্রদায়ের বৌদ্ধগণ শিবপূজা করিতেন। এই শিবের স্থান বুদ্ধ অপেক্ষা নিয়ে। শূন্ত-পুরাণে দেখা যায় শিব বুদ্ধ বা ধৰ্ম্মকে পূজা করার জন্ত উপকরণ সংগ্ৰহ করিতেছেন। বৌদ্ধযুগের শিব কৃষকদিগের দেবতা। পরবর্তী হিন্দুধৰ্ম্মের নেতৃগণ শিবের যে প্রশান্ত রজত-গিরিনিভ মূৰ্ত্তি ও সমাধির অবস্থা কল্পনা করিয়াছেন বৌদ্ধযুগের শিবে তাহার কিছুই নাই। তিনি কৃষি-কাৰ্য্য করেন এবং গৃহে শিবানীর সঙ্গে নিম্ন শ্রেণীর লোকের দ্যায় কলহ করেন । এই কৃষক-শিবের গান বঙ্গদেশে এরূপ প্রচলিত হইয়াছিল যে, পরবর্তী হিন্দু কবিগণও শিবচরিত্রের এই ভাগ একবারে বর্জন করিতে পারেন পাই। রামেশ্বর, ভারতচন্দ্র প্রভৃতি কবিগণ শিবের যে কৃষি-কাৰ্য্য ও গার্হস্থ্য কলহের আভাস দিয়াছেন, তাহ পূৰ্ব্ববৰ্ত্তী যুগের গীতি অবলম্বন করিয়া। শূন্ত-পুরাণের যে শিবের গান উদ্ধৃত হইল, তাহ পাঠ করিয়া জনৈক মনস্বিনী ইংরাজ-মহিলা তাহার কবিত্বের অতি উচ্চ প্রশংসা করিয়াছিলেন। শিবের ভক্ত শিবকে উলঙ্গ দেখিয়া তাহাকে বস্ত্র বয়নের জন্ত কাপাস বুনিতে বলিতেছেন, তাহার উপবাস-শীর্ণ দেহ এবং ভিক্ষা-বৃত্তির কথা স্মরণ করিয়া ধান্ত রোপণ করিতে উপদেশ দিতেছেন, ইহা সেই ইংরাজ-মহিলার মতে ভক্তির পরাকাষ্ঠা। সাধারণ ভক্ত উপাস্ত দেবতার নিকট স্বীয় অভাবঅভিযোগের কথাই জানাইয়া থাকেন। কিন্তু এখানে উপাসক নিজকে সম্পূর্ণরূপে ভুলিয়া স্বীয় উপাস্ত দেবতার দুঃখে বিগলিত হইতেছেন, এরূপ নিজের সুখ-দুঃখ-বিস্তৃতি এবং দেবতার প্রতি তন্ময়-ভাব ভক্তির ও কবিত্বের শ্রেষ্ঠতম উপাদান। যতদূর ধৰ্ম্মর ওঁঙ্কার যান। গারস্থের মহাপাপ দূরত পলান। (১) সাম যজু ঋক্ অথৰ্ব্ব বেদ। ওঁকার লইয়া ধৰ্ম্মর পঞ্চম বেদ । শুন শুন পণ্ডিত আগমর ভেদ ॥ (১) যতদূর পর্য্যন্ত ধৰ্ম্মঠাকুরের শুকার শব্দ ধ্বনিত হয়, ততদূর হইতে গৃহস্থের যত পাপ দূরে সরিয়া যায়।