পাতা:Vanga Sahitya Parichaya Part 1.djvu/৩০৭

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


মনসামঙ্গল-বিজয় গুপ্ত—খৃঃ ১৫শ শতাব্দী। বিজয় গুপ্তের নিবাস পূৰ্ব্ববঙ্গের বাখরগঞ্জ জেলার অন্তর্গত ফুলত্র গ্রাম। ১৪৯৪ খৃষ্টাব্দে সম্রাট হুসেন সাহের সময় ইহার মনস-মঙ্গল কাব্য শেষ হয়। সম্ভবতঃ ১৪৭৮ খৃষ্টাব্দে উহার আরম্ভ। বিশেষ বিবরণ বঙ্গভাষা ও সাহিত্যের ১৮৯–১৯৩ পৃষ্ঠায় দ্রষ্টব্য। খেয়া-নৌকার কত্রী ডোমিনী কর্তৃক চণ্ডীকে শিবের সন্ধান দান । ডোমনী বলে সর্থী তোমার স্বামী নহে দেখি জানিয়া জিজ্ঞাস কি কারণে । লাখে লাখে লোক যায় পার হৈয়া খেয়া-নায় হুড়াহুড়ি কেবা কারে চিনে ॥ সরযুর ঘাট যুড়ি খেয়া দিতে আইলাম বুড়ী আজু বড় দেখিলাম কৌতুক। এক বুড়া হইল পার তিনটী নয়ন তার দেখিতে সুন্দর পঞ্চমুখ ॥ কপালে চাদের ফোট৷ আকাশে পরশে জট বাম কন্ধে লোহার ত্রিশূল। বলদে চড়িয়া যায় শিঙ্গা ডস্তুর বঁায় দুই কর্ণে ধুতুরার ফুল। গলায় হাড়ের মালা পিন্ধন বাঘের ছাল সকল শরীর ভষ্মময় । হৃদয়ে ফোপায় ফণী তার শিরে জলে মণি তাহারে দেখিতে করে ভয় ॥ তপস্বীর বেশে চলে নয়নে অনল জলে লম্বা লম্বী করে গোপ-দাড়ি। দন্ত ভ্রুকুটি করে নবগুণ (১) তুলিয়া ধরে পার হৈয়া না দেয় খেয়ার কড়ি ॥ ডোম-নারী যত কয় চণ্ডিকার মনে লয় মনে ভাবে ঐ মোর স্বামী । বলে সখি ভাল কহ আজু তুমি ঘরে রহ নাও লয়্যা খেয়া দিব আমি ৷ চণ্ডীরে রাখিয়া নায় ডোম-নারী ঘরে যায় সানন্দে বিজয় গুপ্ত গায় ॥ (১) নবগুণ = নগুণ = উপবীত । R8 >b-Q