পাতা:Vanga Sahitya Parichaya Part 1.djvu/৩২৯

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


খ্রঃ ১৫শ শতাব্দী । বধু আগে কোলে আস তোরে কোলে করি। আমার মনের যত দুঃখ সকল পাসরি ॥ পুত্রের বার্তা পাইয়া চাদর বড় রঙ্গ। দোলা ঘোড়া এড়িয়া (১) চাদ দিল উভী লড়। আথে ব্যথে (২) যায় চাদ করিয়া লড়ালড়ি। বাম কান্ধে লইয়া চাদ হেতলের বাড়ি ॥ সোণেকার পাছে ধাইল ছয় বধূ রাণ্ডী। বায়ুবেগে ধায় যেন ধনুকের গাওঁ ৷ শুনিয়া দেশের লোক হইল কৌতুক । এককালে ধাইয়া আল্য ডিঙ্গার সম্মুখ ॥ মনসা-মঙ্গল—দ্বিজ বংশীবদন দ্বিজ বংশীবদনের মনসা-মঙ্গল । বংশীবদনের নিবাস ময়মনসিংহের অন্তর্গত কিশোরগঞ্জ থানার অধীন পাতওয়াড়ী গ্রাম। ১৫৭৫ খৃষ্টাব্দে ইনি মনসামঙ্গল কাব্য রচনা করেন (৩) । ইনি সংস্কৃত ভাষায় স্থপণ্ডিত ছিলেন। বাঙ্গালা মনসামঙ্গল ছাড়া ইনি রামগীতা, চণ্ডী এবং কৃষ্ণগুণার্ণব নামক তিনখানি বৃহৎ গ্রন্থ ও রচনা করেন। ইহার রচিত মনসামঙ্গল হাইকোর্টের উকীল ঐযুক্ত দ্বারকানাথ চক্ৰবৰ্ত্ত মহাশয় সম্প্রতি প্রকাশ করিয়াছেন। দ্বিজ বংশী যে সময়ের লোক, তাহা স্মরণ করিলে তাহার রচনা যে প্রাচীন-কাব্য-সমুহের মধ্যে বিশেষ আদরণীয় ও বিশুদ্ধ তাহ নিঃসন্দেহে বলা যাইতে পারে। ইহার সম্বন্ধে অপরাপর জ্ঞাতব্য বিষয় প্রকাশিত মনসামঙ্গলের ভূমিকায় দ্রষ্টব্য। দক্ষের শিব-নিন্দ ও যজ্ঞ-শাল হইতে দধীচির প্রস্থান । দক্ষ বলে শিবকে ন কৈলু নিমন্ত্রণ। জাতিহীন জানি তাকে বলে সৰ্ব্ব জন ॥ চারি জাতি মধ্যে শিব নহে এক জাতি। আচার বিচার নাহি নাম পশুপতি ॥ (১) ত্যাগ করিয়া। (২) আস্তে ব্যস্তে = তাড়াতাড়ি। (৩) “জলধির বামেত ভুবন মাঝে দ্বার। শকে বচে দ্বিজ বংশী পুরাণ পদ্মার ৷ ” অর্থাৎ ১৪৯৭ শক = ১৫৭৫ *: