পাতা:Vanga Sahitya Parichaya Part 1.djvu/৪১৪

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


২৯২ বঙ্গ-সাহিত্য-পরিচয় । স্বামী মোর কি বলিব ঘরে যাইতে নাহি দিব ভূমিতলে পড়ি দেবী কান্দে। রাজা ডাকে কেতিয়াল মণ্ডলিয়া সারায়াল কড়ি না দিলেহ মালা পিন্ধে ৷ বিচার নাহিক দেশে তাতে কোন লোক বৈসে কান্দি দেবী শঙ্কুর নগরে। ডাকিনী খাউক আসি শিস্য সবের বুকে বসি বাহুড়িয়া (১) না যাইবে ঘরে ॥ ফুল ছড়া লৈয়া কান্ধে শিষ্যগণে ফুল পিন্ধে কালকূট নাগিনী তখন। পদ্মাবতী বাণ (২) মারে সব শিন্য ঢলি পড়ে শ্রীরামবিনোদ সুবচন ॥ দ্বিজ রসিক । দ্বিজ রসিকের মনসামঙ্গল অতি বিরাট্রগ্রন্থ। আমরা ১২৫৮ সালের হস্ত-লিখিত পুথি হইতে তদীয় রচনা উদ্ধত করিলাম। গ্রন্থ-রচনার সময় পাই নাই। ভাষা দেখিয়া মনে হয় দ্বিজ রসিক অনুন ১০০ বৎসর পূৰ্ব্বের লেখক। ভণিতায় তাহার সম্বন্ধে এই কয়েকটি বিবরণ পাওয়া যায় : সেনভূম ও মল্লভূমের মধ্যবৰ্ত্ত আখড়াশাল নামক স্থানে তাহার নিবাস ছিল। কবির পূর্ব মিরাসী তালুক পাড়িগ্রাম, কাকুটী, চন্দনপুর প্রভৃতি স্থানের নামও ভণিতায় পাওয়া যায়। ইহার বৃদ্ধ-প্রপিতামহের নাম কালিদাস, পিতামহের নাম মহেশ মিশ্র, পিতার নাম প্রসাদ বা শিবপ্রসাদ। কবির অপর দুই ভ্রাতা ছিল, তাহদের নাম রাজারাম ও অযোধ্যা ; এক ভগিনী, নাম সাবিত্রী। র্তাহার ভাগিনেয় শুকদেবের জন্ত এবং সীতামণি নামক একটি (সম্ভবতঃ তাহার পুত্র) শিশুর জন্যও তিনি ভণিতায় । মনসাদেবীর নিকট প্রার্থনা জানাইয়াছেন। দ্বিজ রসিকের দুইটি উপাধি দৃষ্ট হয়, তাহার একটি ‘কবিবল্লভ ও অপরটি ‘কবিকঙ্কণ। আখড়াশালের নিকটবৰ্ত্তী শাষপুর গ্রামের নাম কবিতার মধ্যে লেখিত আছে। কলার মান্দাসে বেহুলার খেদোক্তি । কান্দেন বেহুলা রামা পতি কোলে করি । তোমার লাগিয়া ভাসি জলের উপরি ॥ (১) ফিরিয়া । ২) বিষ-প্রেরক মন্ত্র পড়িলেন।