পাতা:Vanga Sahitya Parichaya Part 1.djvu/৬৬৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


রামায়ণ—ঘনশু্যাম দাস—১৬শ শতাব্দী। (:8 X চোঁদ বৎসর যাব কোন কষ্ট নাঞি পাব মনে না ভাবিহু তুমি ব্যথা ৷ রামচন্দ্র স্বত কয় রাণীর মনে নাঞি লয় পুত্রের সমান নাই কেহো । উথলিল শোক-সিন্ধু স্নান হৈল মুখ-ইন্দু লোচনে রাখিতে নারে লোহ (১) ॥ দ্বিজ মধুকণ্ঠে কয় রাণী স্থিরতর নয় বিনাঞ বিনাঞাঁ রাণী কানে । পুত্র যায় বনবাস রাণী হৈল নৈরাশ শোকাবেশে বুক নাঞি বান্ধে ৷ ঘনশ্যাম দাসের সীতার বনবাস । যে পুথি হইতে এই অংশ উদ্ধত হইল তাহ ১৬২৭ খৃষ্টাব্দে (বাঙ্গল ১০৩৫ সালে ) নকল হয়। ঘনাম দাসের কোন পরিচয় পাওয়া যায় নাই। ইনি মহাভারতও অনুবাদ করিয়াছিলেন । আরোহণ কৈল রথে লক্ষ্মণ ধানুকী। অবিলম্বে গেলা যথা আছেন জানকী ॥ লক্ষ্মণ দেখিয়া সীতা হরিষ বদন । দেখিব মুনির পত্নী আনন্দিত মন ॥ লক্ষ্মণ প্রণাম কৈল সীতার চরণে । আশীৰ্ব্বাদ কৈল সীতা ঠাকুর লক্ষ্মণে ॥ সীতা বলেন প্রভু রাম গুণের সাগর। বাঞ্ছা-কল্পতরু রাম সরল পঞ্জর ॥ বন-গমঙ্গোদ্যোগ। হাসিয়া কহিলু কালি রাত্রের ভিতরে। তে কারণে প্রভু রাম পাঠাল্য তোমারে ॥ প্রফুল্ল হৃদয়ে কৈল স্নান দেবার্চন। দেখিব মুনির পত্নী সানন্দিত মন ॥ মুনি-পত্নী সম্ভাষিতে নানা ধন নিল। অগুরু চন্দন বস্ত্র স্বতেক আছিল। রামের পাছক নিল ভরত তুলিয়া। দেখিয়া লক্ষ্মণ কাদে সকরুণ হৈয়া ॥ কৌশল্যার স্থানে গেলা হৈতে বিদায়। গঙ্গাতীরে যাব আমি করন্থ বিদায় ॥ (১) আশ্র ।