পাতা:Vanga Sahitya Parichaya Part 1.djvu/৮৩১

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


মহাভারত—বাস্থদেব আচাৰ্য্য—১৭শ শতাব্দী । 이 হৃষীক সারথি করি নিল বৃকোদর। রথ সাজায়ে অস্ত্র তাতে তোলে বহুতর ॥ অশ্বথাম বীর জান পৃথিবী-বিদিত। অল্প অস্ত্রে জিনিতে নারিব কদাচিত ॥ হৃষীক সারথি অস্ত্ৰ তুলিল বহুতর। লক্ষকোটি ধনুঃ গুণ বহু অস্ত্র আর ॥ (১) বাসুদেব আচার্য্যের মহাভারত। বাসুদেবের পরিচয় সম্বন্ধে এই কয়েকটি ছত্র পাওয়া যায়— শিবদেব ঠাকুরের কনিষ্ঠ সন্ততি । ভবানীর সেবা করি কৈল রসবতি ॥ মৈথিল ব্রাহ্মণ তাকে জানিবা নিশ্চয়। শ্রীরাম ঠাকুর হেন লোকত বোলয় ॥ তার উপাসক এক জ্যোতিষ ব্রাহ্মণ । বাসুদেব নাম তার কহে সৰ্ব্বজন ॥ আর একটু পরিচয় এই নিম্নোদ্ধত অংশেই আছে। রঙ্গপুর হইতে শ্ৰীযুক্ত গোপাল দাসকুধু মহাশয় ১৫০ বৎসরের প্রাচীন পুথি হইতে নিয়ের অংশ নকল করিয়া পাঠাইয়াছেন। পাণ্ডবগণের মহাপ্রস্থান । স্বৰ্গারোহণ-পৰ্ব্ব । লিপির তারিখ পাওয়া যায় নাই। অক্ষর দেখিয়া মনে হয় গ্রন্থখানির বয়স ১৫০ বৎসরের কম নহে। গ্ৰন্থখানি জীর্ণ। সন্ন্যাসীর বেশ ধরি যায় পঞ্চ ভাই । তার পাছত যায় পাটেশ্বরী আই (২) ॥ দ্রৌপদী সহিতে পঞ্চ ভাই যায় বন । পরিজন ও প্রজাৰ্বঙ্গের নগরীয় লোকে দেখি করান্ত ক্ৰন্দন ॥ বিলাপ। - (১) এই অংশ ত্রযুক্ত হরগোপাল দাসকুণ্ডু মহাশয় সংগ্ৰহ করিয়া দিয়াছেন। (২) মাতা। এখানে দ্রৌপদী।