দোসর

দোসর আমার, দোসর ওগাে, কোথা থেকে
কোন শিশুকাল হ’তে আমায় গেলে ডেকে।
তাই তাে আমি চির-জনম এক্‌লা থাকি,
সকল বাঁধন টুট্‌লাে আমার, একটি কেবল রইলাে বাকি—
সেই তো তােমার ডাকার বাঁধন, অলখ ডােরে
দিনে দিনে বাঁধ্‌লাে মােরে॥

দোসর ওগাে, দোসর আমার, সে ডাক তব
কত ভাষায় কয় যে কথা নব নব।
চ’ম্‌কে উঠে ছুটি যে তাই বাতায়নে,
সকল কাজে বাধা পড়ে, বসে থাকি আপন মনে;—
পারের পাখী আকাশে ধায় উধাও গানে
চেয়ে থাকি তাহার পানে॥

দোসর আমার, দোসর ওগাে, যে বাতাসে
বসন্ত তা’র পুলক জাগায় ঘাসে ঘাসে,
ফুল-ফোটানাে তােমার লিপি সেই কি আনে?
গুঞ্জরিয়া মর্ম্মরিয়া কী ব’লে যায় কানে কানে,
কে যেন তা বােঝে আমার বক্ষতলে,
ভাসে নয়ন অশ্রুজলে॥

দোসর ওগাে, দোসর আমার, কোন সুদূরে
ঘর-ছাড়া মাের ভাব্‌না বাউল বেড়ায় ঘুরে।
তা’রে যখন শুধাই, সে তো কয় না কথা,
নিয়ে আসে স্তব্ধ গভীর নীলাম্বরের নীরবতা।
একতারা তা’র বাজায় কভু গুণ্‌গুণিয়ে,
রাত কেটে যায় তাই শুনিয়ে॥

দোসর ওগাে, দোসর আমার, উঠ্‌লাে হাওয়া,—
এবার তবে হােক আমাদের তরী বাওয়া।
দিনে দিনে পূর্ণ হ’লাে ব্যথার বােঝা,
তীরে তীরে ভাঙন লাগে, মিথ্যে কিসের বাসা খোঁজা।
একে একে সকল রসি গেছে খুলে,
ভাসিয়ে এবার দাও অকূলে॥

দোসর ওগাে, দোসর আমার, দাওনা দেখা,
সময় হ’লাে একার সাথে মিলুক একা।
নিবিড় নীরব অন্ধকারে রাতের বেলায়
অনেক দিনের দূরের ডাকা পূর্ণ করাে কাছের খেলায়।
তােমায় আমায় নতুন পালা হােক না এবার
হাতে হাতে দেবার নেবার॥


আণ্ডেস্ জাহাজ,

২৮ অক্টোবর, ১৯২৪।