শীত

কেন শীতের হাওয়া হঠাৎ ছুটে এলাে
গানের বেলা শেষ না হ’তে হ’তে?
আমার মনের কথা ছড়িয়ে এলােমেলাে
ভাসিয়ে দিলাে শুক্‌নাে পাতার স্রোতে।
আমার মনের কথা যত
তা’রা উজান তরীর মতাে;
পালে যখন হাওয়ার বলে
মরণ-পারে নিয়ে চলে,
চোখের জলের স্রোত যে তাদের টানে
পিছু ঘাটের পানে
যেথায় তুমি, প্রিয়ে,
এক্‌লা ব’সে আপন মনে
আঁচল মাথায় দিয়ে॥

কেন ঘােরে তা’রা শুক্‌নাে পাতার পাকে,
কাঁপন-ভরা হিমের বায়ুভরে?
কেন ঝরা ফুলের পাপ্‌ড়ি তা’দের ঢাকে,
লুটায় কেন মরা ঘাসের পরে?
তাদের হ’লাে কি দিন সারা?
এখন বিদায় নেবে তা’রা?

এবার বুঝি কুয়াশাতে
লুকিয়ে তা’রা পােউষ রাতে
ধূলার ডাকে সাড়া দিতে চলে
যেথায় ভূমিতলে
এক্‌লা তুমি, প্রিয়ে,
ব’সে আছো আপন মনে
আঁচল মাথায় দিয়ে?

আমার মন যে বলে, নয় কখনই নয়,
ফুরায়নি তাে, ফুরাবার এই ভান;
আমার মন যে বলে, শুনি আকাশময়
যাবার মুখে, ফিরে আসার গান।
আমার ভরা-মনের কথা;
তাদের শীর্ণ শীতের লতা
হিমের রাতে লুকিয়ে রাখে
নগ্ন শাখার ফাঁকে ফাঁকে,
ফাল্গুনেতে ফিরিয়ে দেবে ফুলে
তােমার চরণ মূলে
যেথায় তুমি, প্রিয়ে,
এক্‌লা ব’সে আপন মনে
আঁচল মাথায় দিয়ে॥


বুয়েনােস্ এয়ারিস্,

১০ নভেম্বর, ১৯২৪।