পূরবী/পথিক/শেষ বসন্ত

শেষ বসন্ত

আজিকার দিন না ফুরাতে
হবে মাের এ আশা পূরাতে—
শুধু এবারের মতাে
বসন্তের ফুল যত
যাবাে মােরা দুজনে কুড়াতে।
তােমার কানন-তলে ফাল্গুন আসিবে বারম্বার,
তাহারি একটি শুধু মাগি আমি দুয়ারে তােমার॥

বেলা কবে গিয়াছে বৃথাই
এত কাল ভুলে ছিনু তাই।
হঠাৎ তােমার চোখে
দেখিয়াছি সন্ধ্যালােকে
আমার সময় আর নাই।
তাই আমি একে একে গণিতেছি কৃপণের সম
ব্যাকুল সঙ্কোচভরে বসন্ত-শেষের দিন মম॥

ভয় রাখিয়াে না তুমি মনে;
তােমার বিকচ ফুল-বনে
দেরি করিব না মিছে
ফিরে চাহিব না পিছে,
দিন শেষে বিদায়ের ক্ষণে।
চাবাে না তােমার চোখে আঁখি জল পাবাে আশা করি’,
রাখিবারে চিরদিন স্মৃতিরে করুণা রসে ভরি’॥

ফিরিয়া যেয়ােনা, শােনাে শােনো,
সূর্য্য অস্ত যায়নি এখনাে।
সময় র’য়েছে বাকি;
সময়েরে দিতে ফাঁকি
ভাবনা রেখাে না মনে কোনাে।
পাতার আড়াল হ’তে বিকালের আলােটুকু এসে
আরাে কিছুখন ধ’রে, ঝলুক তােমার কালাে কেশে॥

হাসিয়াে মধুর উচ্চহাসে
অকারণ নির্ম্মম উল্লাসে,
বন-সরসীর তীরে
ভীরু কাঠ-বিড়ালীরে
সহসা চকিত কোরো ত্রাসে।
ভুলে-যাওয়া কথাগুলি কানে কানে করায়ে স্মরণ
দিব না মন্থর করি’ ওই তব চঞ্চল চরণ॥

তা’র-পরে যেয়াে তুমি চ’লে
ঝরা-পাতা দ্রুতপদে দ’লে
নীড়ে-ফেরা পাখী যবে
অস্ফুট কাকলী রবে
দিনান্তেরে ক্ষুব্ধ করি’ তােলে।
বেনুবনচ্ছায়া-ঘন সন্ধ্যায় তােমার ছবি দূরে
মিলাইবে গােধূলির বাঁশরীর সর্ব্বশেষ সুরে॥

রাত্রি যবে হবে অন্ধকার
বাতায়নে বসিয়াে তােমার।
সব ছেড়ে যাবাে, প্রিয়ে,
সুমুখের পথ দিয়ে,
ফিরে দেখা হবে না তাে আর।
ফেলে দিয়ে ভােরে-গাঁথা ম্লান মল্লিকার মালাখানি।
সেই হবে স্পর্শ তব, সেই হবে বিদায়ের বাণী॥


বুয়েনােস্ এয়ারিস্,

২২ নভেম্বর, ১৯২৪।