গীতবিতান/প্রেম/৩০২

৩০২

ওগাে  এত প্রেম-আশা, প্রাণের তিয়াষা  কেমনে আছে সে পাশরি।
তবে  সেথা কি হাসে না চাঁদিনী যামিনী,  সেথা কি বাজে না বাঁশরি।
সখী, হেথা সমীরণ লুটে ফুলবন, সেথা কি পবন বহে না।
সে যে  তার কথা মােরে কহে অনুক্ষণ, মাের কথা তারে কহে না!
যদি  আমারে আজি সে ভুলিবে সজনী, আমারে ভুলালে কেন সে।
ওগাে  এ চিরজীবন করিব রোদন, এই ছিল তার মানসে!
যবে  কুসুমশয়নে নয়নে নয়নে  কেটেছিল সুখরাতি রে,
তবে  কে জানিত তার বিরহ আমার  হবে জীবনের সাথি রে।
যদি  মনে নাহি রাখে, মুখে যদি থাকে,  তােরা একবার দেখে আয়—
এই  নয়নের তৃষা, পরানের আশা,  চরণের তলে রেখে আয়।
আর  নিয়ে যা রাধার বিরহের ভার,  কত আর ঢেকে রাখি বল্।
আর  পারিস যদি তাে আনিস হরিয়ে  এক-ফোঁটা তার আঁখিজল।
না না,  এত প্রেম, সখী, ভুলিতে যে পারে  তারে আর কেহ সেধো না।
আমি  কথা নাহি কব, দুখ লয়ে রব,  মনে মনে স’ব বেদনা।
ওগাে  মিছে মিছে, সখী, মিছে এই প্রেম,  মিছে পরানের বাসনা।
ওগাে  সুখদিন হায় যবে চলে যায়  আর ফিরে আর আসে না।