গৌড়লেখমালা (প্রথম স্তবক)/মদনপালদেবের তাম্রশাসন


 

মদনপালদেবের তাম্রশাসন।

[মনহলি-লিপি]
প্ৰশস্তি-পরিচয়।

 দিনাজপুরের অন্তর্গত মনহলি নামক গ্রামে একটি পুরাতন পুষ্করিণীর এক কোণে খাল কাটিবার সময়, ১২৮২ সালে [১৮৭৫ খৃষ্টাব্দে] এই তাম্রশাসনখানি বাহির হইয়া পড়ে। ইহা আবিষ্কার-কাহিনী। বহুকাল গ্রামের জমিদার শ্রীযুক্ত যোগেশচন্দ্র বন্দ্যোপাধ্যায় মহাশয়ের বাটীতে রক্ষিত হইয়াছিল; এবং তৎকালে দিনাজপুরের কেহ কেহ ইহার ছাপ তুলিয়া লইয়া, পাঠোদ্ধার করিবারও চেষ্টা করিয়াছিলেন। অবশেষে পরলোকগত নন্দকৃষ্ণ বসু এম-এ, মহোদয় দিনাজপুরের কলেক্‌টর হইবার পর, তাঁহার চেষ্টায় এই তাম্রশাসন বিদ্বৎসমাজে উপনীত হইয়াছে। ১৩০৫ সালের সাহিত্যপরিষৎ-পত্রিকায় প্রাচ্যবিদ্যামহার্ণব শ্রীযুক্ত নগেন্দ্রনাথ বসু মহাশয় লিখিয়াছেন—“শ্রীযুক্ত নন্দকৃষ্ণ বসু মহাশয়” এই তাম্রফলক সংগ্রহ করিয়া, “সাহিত্য-পরিষৎ-কার্য্যালয়ে অর্পণ করিয়াছেন”। তিনিই আবার [১৯০০ খৃষ্টাব্দের এসিয়াটিক্ সোসাইটির পত্রিকায়] লিখিয়াছেন,—“দিনাজপুরের কলেক্‌টর এন, কে, বসু মহাশয় ১৮৯৯ খৃষ্টাব্দে এই তাম্রশাসনখানি সোসাইটিকে উপহার দান করিয়াছেন।”[১] শাসনথানি সাহিত্যপরিষৎ-কার্য্যালয়ে দেখিতে পাওয়া যায় না; তাহা সোসাইটিতেই রক্ষিত হইতেছে।

 এই শাসনলিপি কলিকাতায় আনীত হইবাব পর, শ্রীযুক্ত বসু মহাশয় ইহার পাঠোদ্ধারে ব্যাপৃত হইয়া, প্রথমে পরিষৎ-পত্রিকায়, পরে সোসাইটির পত্রিকায় এবং বিশ্বকোষে ইহার পাঠ পাঠোদ্ধার-কাহিনী। মুদ্রিত করিয়াছেন। তৃতীয় বিগ্রহপালদেবের আমগাছি-লিপির পাঠ বিশুদ্ধরূপে মুদ্রিত ও প্রকাশিত হইবার পর, প্রথম হইতে একাদশ পাল-নরপালের পরিচয়-বিজ্ঞাপক যে সকল শ্লোক বিদ্বৎসমাজে সুপরিচিত হইয়াছে, এই তাম্রশাসনে সেই সকল শ্লোক এবং তদতিরিক্ত [ছয় জন নূতন নরপালের পরিচয়-বিজ্ঞাপক] ছয়টি নূতন শ্লোক উৎকীর্ণ রহিয়াছে। বসু মহাশয় নূতন শ্লোকগুলির যেরূপ পাঠ পরিষৎ-পত্রিকায় মুদ্রিত করিয়াছিলেন, সোসাইটির পত্রিকায় মুদ্রিত করিবার সময়ে, তাহা পরীক্ষিত ও সংশোধিত হইয়াছিল। তথাপি নূতন শ্লোকগুলির বিশুদ্ধ পাঠ উদ্ধৃত হইতে পারে নাই।

 বসু মহাশয় এই তাম্রশাসনের একটি সম্পূর্ণ বঙ্গানুবাদ [সাহিত্য-পরিষৎ-পত্রিকায়] প্রকাশিত করিবার চেষ্টা করিয়াছিলেন। কিন্তু তিনি অনুবাদের শেষে লিখিয়াছেন—“মূল তাম্রশাসনের কোন কোন স্থান ঠিক্‌ বুঝিতে না পারায়, স্থানে স্থানে মূল শব্দ অবিকল ব্যাখ্যা-কাহিনী। রক্ষিত হইল।” এই শাসন-লিপিতে যে সকল পূর্ব্বপরিচিত শ্লোক দেখিতে পাওয়া যায়, তাহার সংখ্যাই অধিক; এবং তাহার ব্যাখ্যা-কার্য্য পূর্ব্বেই সম্পন্ন হইয়াছে। বসু মহাশয়ের বঙ্গানুবাদ সর্ব্বাংশে মূলানুগত না হইলেও, তাঁহার চেষ্টা বঙ্গানুবাদ-সাধনের প্রথম চেষ্টা বলিয়া উল্লেখযোগ্য।

 এই তাম্রশাসনখানির আয়তন ১৫ / × ১৫ ইঞ্চ বলিয়া পরিষৎ-পত্রিকায়, এবং ১৫ / × ১৬ ইঞ্চ বলিয়া সোসাইটির পত্রিকায় উল্লিখিত আছে। পরিষৎ-পত্রিকায় এবং বিশ্বকোষে এই শাসনলিপির লিপি-পরিচয়। একটি অস্পষ্ট প্রতিকৃতি প্রকাশিত হইয়াছে। তাম্ৰাপট্টে পাল-নরপালগণের চিরপরিচিত ধর্ম্মচক্রমুদ্রা সংযুক্ত আছে, তন্মধ্যে “শ্রীমদনপালদেবস্য” খোদিত থাকা দেখিতে পাওয়া যায়। তাম্রপটের প্রথম পৃষ্ঠে ৩৫ পংক্তি এবং অপর পৃষ্ঠে ২৩ পংক্তি সংস্কৃত ভাষানিবদ্ধ পদ্যগদ্যাত্মক লিপি উৎকীর্ণ হইয়াছিল। অক্ষরগুলি বিনষ্ট হয় নাই, কেবল লিপিকর-প্রমাদে অথবা কাল-প্রভাবে কোন কোন স্থলে অক্ষরাংশের অথবা চিহ্নাদির কিছু কিঞ্চিৎ ব্যতিক্রম ঘটিয়াছে। ইহাতে বর্ণাশুদ্ধির অভাব নাই। শ এবং স যথেচ্ছভাবে ব্যবহৃত হইয়াছে। এক সময়ে “শিব” লিখিতে লোকে “সিব” লিখিত কেন, ইহাতে তাহার পরিচয় প্রাপ্ত হওয়া যায়। গৌড়ীয় লিপি-পদ্ধতি কিরূপ ছিল, এই সকল প্রাচীন লিপিই তাহার বিশিষ্ট প্রমাণ।

 মদনপালদেবের পট্টমহিষী চিত্রমতিকাদেবী বেদব্যাস-প্রোক্ত মহাভারত পাঠ করাইয়াছিলেন। তাহার দক্ষিণা প্রদানের জন্য, বিজয়-রাজ্যের অষ্টম সম্বৎসরে, [৫৮ পংক্তি] পরমসৌগত মহারাজাধিরাজ লিপি-বিবরণ। রামপালদেবের পাদানুধ্যাত পরমেশ্বর পরমভট্টারক মহারাজাধিরাজ শ্রীমন্মদনপালদেব, [৩১-৩২ পংক্তি] শ্রীরামাবতীনগর-পরিসর-সমাবাসিত-শ্রীমজ্জয়স্কন্ধাবার হইতে, [৩০ পংক্তি] পণ্ডিত ভট্টপুত্র শ্রীবটেশ্বর স্বামিশর্ম্মাকে, [৪৪ পংক্তি] শ্রীপৌণ্ড্রবর্দ্ধনভুক্তির অন্তর্গত কোটীবর্ষ-বিষয়ের অন্তঃপাতি হলাবর্ত্ত-মণ্ডলে [৩২ পংক্তি] এই তাম্রশাসনোল্লিখিত ভূমি দান করিয়াছিলেন। সান্ধিবিগ্রহিক ভীমদেব ইহার “দূতক” [৫৭ পংক্তি] ছিলেন। তথাগতসর নামক শিল্পিকর্ত্তৃক [৫৮ পংক্তি] এই তাম্রশাসন উৎকীর্ণ হইয়াছিল।


 

প্রশস্তি-পাঠ।

 ॐ नमो बुद्धाय॥
 स्वस्ति॥
मैत्री ङ्कारुण्यरत्न-प्रमुदित-हृदयः प्रेयसीं सन्दधानः
सम्यक्-सम्बोधि-विद्या-सरिदमलजल-क्षालि-
ताज्ञान-पङ्कः।

जित्वा यः कामकारि-प्रभव मभिभवं शाश्वतीं प्राप शान्तीं
स श्रीमान् लोकनाथो जयति दशबलोऽन्यश्च गोपालदेव
ः॥(১)
लक्ष्मी-जन्मनिकेतनं समकरो वोढु[ं]-क्षमः क्ष्माभरं
पक्षच्छेदभयादुपस्थितवता मेकाश्रयो भूभृतां।
मर्य्यादा-परिपालनैक-नि-
रतः शौर्य्यालयोऽस्मादभू[त्]
दुग्धाम्भोधि-विलासहास-वसतिः श्रीधर्म्मपालो नृपः॥(২)
रामस्येव गृहीत-सत्यतपस स्तस्यानुरूपो गुणैः
सौमित्रे रुदपादि तुल्यमहिमा वाक्पालनामानुजः[।]
यः श्रीमान् नय-विक्रमैक-वसति र्भ्रातुः स्थितः शासने
शून्याः शत्रु-पताकिनीभि र-
करोदेकातपत्रा दिशः॥(৩)
तस्मादुपेन्द्र-चरितै र्जगतीं पुनानः
पुत्रो बभूव विजयी जयपालनामा।
धर्म्मद्विषां शमयिता युधि देवपाले
यः पू-
र्व्वजे भुवनराज्य-सुखान्यनैषीत्॥(৪)
श्रीमद्विग्रहपाल स्तत्-सूनु रजातशत्रुरिव जातः।
शत्रुवनिता-प्रसाधन-विलोपि-विलासिजलधारः॥(৫)
दिक्पालैः क्षितिपालनाय दधतं देहे विभक्तान् गुणान्
श्रीमन्तं जनयाम्बभूव तनयं नारायणं स प्रभुं।

यः क्षोणी-पतिभिः सि(शि)रोमणि-रुचा-
श्लिष्टाङ्घ्रि-पीठोपलं
न्यायोपात्त मलञ्चकार चरितैः स्वैरेव धर्म्मासनं॥(৬)
तोयाशयै र्ज्जलधि-मूल-गभीर-गर्भै-
र्देवालयैश्च कुलभूधर-
१० तुल्यकक्षैः[।]
विख्यात-कीर्त्ति रभवत्तनयश्च तस्य
श्रीराज्यपाल इति मध्यमलोक-पालः॥(৭)
तस्मा[त्] पूर्व्व-क्षितिध्रान्निधिरिव महसां राष्ट्र-
११ कूटान्वयेन्दो-
स्तुङ्गस्योत्तुङ्ग-मौले र्द्दुहितरि तनयो भाग्यदेव्यां प्रसूतः।
श्रीमान् गोपालदेव श्चिरतरमवने रेकपत्न्या इवै-
१२ को
भर्त्ताभून्नैकरत्न-द्युति-खचित-चतुःसिन्धु-चित्रांशुकायाः॥(৮)
तस्माद्बभूव सवितु र्व्वसुकोटिवर्षी
कालेन चन्द्र इव विग्रहपाल-
१३ देवः
नेत्र-प्रियेण विमलेन कलामयेन
येनोदितेन दलितो भुवनस्य तापः॥(৯)
हत-सकल विपक्षः सङ्गरे वाहुदर्प्पा-
दनधि-
१४ कृत-विलुप्तं राज्य मासाद्य पित्र्यं।



निहित-चरणपद्मो भूभृतां मूर्द्ध्नि तस्मा-
दभवदवनिपालः श्रीमहीपालदेवः(১০)
त्यजन्-दो-
१५ षासङ्गं शिरसि कृतपादः क्षितिभृतां
वितन्वन् सर्व्वाशाः प्रसभ मुदयाद्रे रिव रविः।
गुणग्राम्या-स्निग्ध-प्रकृति रनुरागै-
१६ कवसति-
स्ततो धन्य[ः] पुण्यै रजनि नयपालो नरपतिः॥(১১)
पीतः सज्जन-लोचनैः स्मररिपोः पूजानुरक्तः सदा
संग्रामे च-
१७ (तुरोधिकञ्च हरितः) कालः कुले विद्विषां।
चातुर्व्वर्ण्य-समाश्रयः सितयशः-पूरै र्ज्जगल्लम्भयन्
तस्माद्विग्रहपालदेव नृ-
१८ पतिः पुण्यै र्ज्जनानामभूत्॥(১২)
तन्नन्दन श्चन्दन-वारि-हारि-
कीर्त्तिप्रभानन्दित-विश्वगीतः।
श्रीमान् महीपाल इति द्वितीयो
१९ द्विजेश-मौलिः शिववद्बभूव॥(১৩)
तस्याभूदनुजो महेन्द्रमहिमा क(स्क)न्दः प्रतापश्रिया-
मेकः साहस-सारथिर्ग्गुणनयः
२० श्रीशूरपालो नृपः[।]
यः स्वच्छन्द-निसर्ग्ग-विभ्रमभरा-[न्] विभ्रत्-[सु] सर्व्वायुध-
प्रागल्भ्येन मनःसु विस्मय-भयं सद्य स्ततान द्विषां॥(১৪)

ए-
२१ तस्यापि सहोदरो नरपति र्द्दिव्यप्रजा-निर्भर-
क्षोभाहूत-विधूत-वासवधृतिः श्रीरामपालोऽभवत्।
शासत्येव
२२ चिरं जगन्ति जनके यः शैशवे विस्फुरत्-
तेजोभिः परचक्र-चेतसि चमत्कारं चकार स्थिरं॥(১৫)
तस्मादजायत निजा-
२३ यत-बाहुवीर्य्य-
निस्पी(ष्पी)त-पीवर-विरोधियशः-पयोधिः।
मेदस्वि-कीर्त्ति रमरेन्द्र-वधू-कपोल-
कर्प्पूर-पत्रमकरी(?) स कु-
२४ मारपालः(১৬)
प्रत्त(त्य)र्थि-प्रमदा-कदम्बक-शिरःसिन्दूर-लोपक्रम-
क्रीड़ा-पाटल-पाणि रेष सुषुवे गोपाल मूर्व्वीभुजं।
२५ धात्री-पालन-जृम्भमान-महिमा कर्पूर-पांशूत्करै-
र्देवः कीर्त्तिमयो निज[ं] वितनुते यः शैशवे क्रीड़ितम्॥(১৭)
तदनु मदन-
२६ देवी-नन्दन श्चन्द्रगौरै-
श्चरितभुवन-गर्भः प्रांशुभिः कीर्त्तिपूरैः।
क्षिति मचरम-तात स्तस्य सप्ताब्धिदाम्नी-
मभृत मदनपा-
२७ लो रामपालात्मजन्मा॥(১৮)

स खलु भागीरथी-पथ-प्रवर्त्तमान-नानाविध-नौवाटक-सम्पादित-सेतुबन्ध-निहित-शैल-
२८ शिखर[श्रे]णी-विभ्रमा-न्निरतिशय-घनाघन-करिपदृ-श्यामायमान-वासर-लक्ष्मी-समारब्ध-सन्तत-जलद-समय-सन्देहा-
२९ दुदि(दी)चीनानेक-नरपति-प्राभृतीकृता-प्रमेय-हयवाहिनी-खरखुरोत्खात-धूली-धूष(स)रित-दिगन्तरालात् परमेश्वर-सेवा-
३० समागताशेष-जम्बुद्वीपभूपालानन्त-पादा[त]भर-नमदवनेः श्रीरामावती-नगर-परिसर-समावासित-श्रीमज्जयस्कन्धावा-
३१ रात्। परमसौगतो महाराजाधिराजः श्रीरामपालदेव-पादानुध्यातः परमेश्वरः परमभट्टारको महाराजाधिरा-
३२ जः श्रीमन्मदनपालदेवः कुशली॥ पौण्ड्रवर्द्धनभुक्तौ कोटीवर्षविषये हलावर्त्तमण्डले कोष्ठ गिरि[सं विंशत्या दधिकोपेत स-
३३ कैवद्युर्ध्व सारद्धारज्वाके(?)] विंशतिकायां भूमौ। समुपगताशेष-राजपुरुषान् राजराजन्यक-राजपुत्र-राजामात्य-महासन्धिवि-
३४ ग्रहिक-महाक्षपटलिक-महासामन्त-महासेनापति-महाप्रतीहार-दौःसाधसाधनिक-महाकुमारामात्य-राजस्थानी-
३५ योपरिक-चौरोद्धरणिक-दाण्डिक-दाण्डपासि(श)क-शौनिक-क्षेत्रप-प्रान्तपाल-कोट्टपाल-अङ्गरक्ष-तदायुक्तक-विनियुक्तक-
३६ हस्त्यश्वोष्ट्रनौबलव्यापृतक-किशोर-वड़वा-गोमहिषाजाविकाध्यक्ष-दूतप्रेषणिक-गमागमिक-अभित्वरमाण-वि-
३७ षयपति-ग्रामपति-तरिक-शौल्किक-गौल्मिक-गौड़मालव-चोड़-खस-हूण-कुलिक-कर्ण्णाट-लाट-चाटभट्ट-सेवकादी-

३८ न् अन्याँश्चाकीर्त्तितान्। राजपादोपजीविन[ः] प्रतिवासिनो ब्राह्मणेत्तरान् महत्तमोत्तमकुटुम्वी-पुरोगम-चण्डाल-पर्य्यन्तान् य-
३९ थार्हं मानयति बोधयति समादिशति च विदितमस्तु भवतां॥ यथोपरिलिक्षितोयं ग्रामः॥ स्वसीमातृणपूति-गोचर-पर्य्यन्तः॥
४० सतलः सोद्देशः साम्रमधूकः सजलस्थलः सगर्त्तोषरः सझाटविटपः सदरसापसारः सचौरोद्धरणिकः परिहृत-सर्व्व-
४१ पीड़ः अचाटभट्टप्रवेशः अकिञ्चित्-परग्राह्यः भाग-भोगकर-हिरण्यादि-प्रत्याय-समेतः रत्नत्रय-राजसम्भोगवर्ज्जितः
४२ भूमिच्छिद्रन्यायेन आचन्द्रार्कं क्षितिसमकालं मात्रापित्रो रात्मनश्च पुण्ययशोभिवृद्धये कौत्स-सगोत्राय शाण्डि-
४३ ल्यासित-देवल-प्रवराय पण्डित श्रीभूषण-सब्रह्मचारिणे सामवेदान्तर्गत-कौथुम-शाखाध्यायिने चम्याहिट्टीयाय
४४ चम्पाहिठ्ठी-वास्तव्याय वत्सस्वामि-प्रपौत्राय प्रजापति स्वामि-पौत्राय शौनक स्वामि-पुत्राय पण्डितभट्टपुत्र श्रीवटेश्वर स्वा-
४५ मि-शर्म्मणे पट्टमहादेवी-चित्रमतिकया वेदव्यास-प्रोक्त-प्रपाठित-महाभारत-समुत्सर्ग्गित-दक्षिणात्वेन भगव-
४६ न्तं बुद्धभट्टारकमुद्दिश्य शासनीकृत्य प्रदत्तोऽस्माभिः। अतो भवद्भिः सर्व्वैरेवानुमन्तव्यं भाविभिरपि भूमिपति-
४७ भि र्भूमे र्द्दानफल-गौरवात् अपहरणे महा-नरकपातभयाच्च दानमिद मनुमोद्यानुमोद्य पालनीयं प्रतिवासि-
४८ भिश्च क्षेत्रकरै राज्ञाश्रवण-विधेयीभूयः यथाकालं ससुचित-भागभोगकर-हिरण्यादि-प्रत्यायोपनयः कार्य्य इति॥
४९ सम्वत् ८ चन्द्रगत्या चैत्रकर्म्मदिने १५ भवन्ति चात्र धर्म्मानुसं(शं)सिनः श्लोकाः॥

बहुभि र्व्वसुधा दत्ता राजभिः
५० सगरादिभिः

यस्य यस्य यदा भूमि स्तस्य तस्य तदा फलं॥
भूमिं यः प्रतिगृह्नाति यश्च भूमिं प्रयच्छति।
उभौ तौ पुण्य-
५१ कर्म्माणौ नियतं स्वर्ग्गगामिनौ॥
गामेकां स्वर्ण्णमेकञ्च भूमेरप्यर्द्ध-मङ्गुलं
हरन् नरक-मायाति। यावदाहूति(त)-संप्लवं॥
५२ षष्ठीं वर्षसहस्राणि स्वर्ग्गे तिष्ठति भूमिदः।
आक्षेप्ता चानुमन्ता च तान्येव नरके वसेत्॥
स्वदत्तां प-
५३ रदत्तां वा यो हरेत वसुन्धरां।
स विष्ठायां कृमि र्भूत्वा पितृभिः सह पच्यते॥
आस्फोटयन्ति पितरो वल्गयन्ति पिताम-
५४ हाः।
भूमिदोऽस्मत्-कुले जातः स न स्त्राता भविष्यति॥
सर्व्वानेतान् भाविनः पार्थिवेन्द्रान्
भूयोभूय प्रार्थयत्ये-
५५ ष रामः
सामान्योयं धर्म्म-सेतु र्नराणां
काले काले पालनीयः क्रमेण॥
इति कमलदलाम्बु-विन्दुलोलां
श्रिय मनु-
५६ चिन्त्य मनुस्य-जीवितं च।
सकल मिद मुदाहृतञ्च बुद्ध्वा
नहि पुरुषैः पर-कीर्त्तयो विलोप्याः॥
कृत सकल-
५७ नीतिज्ञो धैर्य-स्थैर्य-महोदधिः।
सन्धिविग्रहिकः श्रीमान् भीमदेवोऽत्र दूतकः॥

राज्ये मदनपालस्य अष्टमे
५८ परिवच्छरे[২]
ताम्रपट्ट मिमं शिल्पी तथागतसरोऽखनत्॥


 

বঙ্গানুবাদ।

(১৩)

 সেই বিগ্রহপালদেবের চন্দনবারি-মনোহর-কীর্ত্তিপ্ৰভা-পুলকিত-বিশ্বনিবাসি-কীর্ত্তিত শ্রীমান্ মহীপাল নামক নন্দন মহাদেবের ন্যায় দ্বিতীয় “দ্বিজেশ-মৌলি”[৩] হইয়াছিলেন।

(১৪)

 মহেন্দ্রতুল্য মহিমান্বিত, স্কন্দতুল্য প্রতাপশ্রী-সমন্বিত, সাহস-সারথী,[৪] নীতিগুণ-সম্পন্ন,[৫] শ্রীশূরপাল নামক নরপাল তাঁহার [মহীপালের] এক অনুজ ছিলেন।

(১৫)

 তিনি সর্ব্ববিধ অস্ত্রশস্ত্রের প্রাগল্‌ভ্যে[৬] শত্রুবর্গের স্বচ্ছন্দ-স্বাভাবিক-বিভ্রমাতিশয্যধারী মনে শীঘ্রই বিস্ময়-ভয় বিস্তৃত করিয়া দিয়াছিলেন।

(১৬)

 [দিব্য-প্রজার] দেবলোক-নিবাসিগণের[৭] [অসুরাক্রমণ-সঞ্জাত] অতিশয় চিত্তচাঞ্চল্যে আহূত হইয়া, আন্দোলিত-চিত্ত দেবরাজ [বাসব] যেমন ধৈর্য্যাবলম্বন করিাছিলেন, এই নরপতির সহোদর শ্রীরামপাল নামক নরপতিও সেইরূপ [দিব্য-প্রজার] দিব্য-নামক কৈবর্ত্ত-পতির পক্ষভুক্ত প্রজাবর্গের অতিশয় আক্রমণে আহূত এবং আন্দোলিত-চিত্ত হইয়াও, ধৈর্য্যাবলম্বন করিয়াছিলেন। তাঁহার পিতার [চিরং] সুদীর্ঘ শাসন-সময়েই তিনি শৈশবে তেজঃপুঞ্জের বিস্ফুরণে শত্রু-মণ্ডলের চিত্তক্ষেত্র চমৎকৃত করিয়া দিয়াছিলেন।

(১৭)

 তাঁহার ঔরসে কুমারপাল জন্মগ্রহণ করেন। তিনি স্বকীয় সুবিস্তৃত বাহুবীর্য্য-প্রভাবে শত্রুবর্গের যশঃসাগর নিঃশেষে পান করিয়াছিলেন,[৮] এবং অমরকামিনী-কপোল-কর্পূর-পত্রলেখা-রচনায়[৯] কীর্ত্তিলাভ করিয়াছিলেন।


(১৮)

 বিপক্ষপক্ষের প্রমদাসমূহের [বৈধব্য-সাধনে] সিন্দূর-চিহ্ন বিলোপক্রীড়ায় আরক্ত-পাণিতল এই রাজা পৃথিবী-সম্ভোগকারী গোপালকে জন্মদান করিয়াছিলেন। তিনি ধাত্রী-ক্রোড়ে পালিত হইবার সময়ে, জৃম্ভমান-মহিম হইয়া, স্বকীয় কীর্ত্তিময় শুভ্র-ধূলিপটল-বিক্ষেপে শৈশবে ক্রীড়া-বিস্তার করিয়াছিলেন।[১০]

(১৯)

 তাঁহার পর, তদীয় [অচরম-তাত] কনিষ্ঠতাত[১১] রামপালাত্মজন্মা মদনদেবী-গৰ্ভসম্ভূত মদনপাল ভুবন-গর্ভকে চন্দ্রগৌর কীর্ত্তিকলাপে পরিপূর্ণ করিয়া, সপ্তসমুদ্র-মাল্যধরা বসুন্ধরা পালন করিয়াছিলেন।


 
 

মূলপাঠের টীকা

^(১)  স্রগ্ধরা। এই শ্লোকের “জল”-শব্দ লিপিকর-প্রমাদে বিসর্গান্ত রূপে উৎকীর্ণ হইয়াছে।

^(২)  শার্দ্দূল বিক্রীড়িত। “দুগ্ধাম্ভোধিবিলাস-হাসি-মহিমা”-পাঠ এই তাম্রশাসনে পরিবর্ত্তিত হইয়াছে।

^(৩)  শার্দ্দূল বিক্রীড়িত। “একাতপত্রা”-পাঠের পরিবর্ত্তে বসু মহাশয় কর্ত্তৃক [J. A. S. B. 1900 p. 69] উদ্ধৃত ekatapatro “একাতপত্রো”-পাঠ মুদ্রাকর-প্রমাদ বলিয়াই প্রতিভাত হয়।

^(৪)  বসন্ততিলক।

^(৫)  আর্য্যা।

^(৬)  শার্দ্দূলবিক্রীড়িত। এই শ্লোকের “স প্রভুং” পাঠের পরিবর্ত্তে বসু মহাশয় [J. A. S. B. 1900] “সতাভুং” পাঠ উদ্ধৃত করিয়াছেন, তাহাই সাহিত্যপরিষৎ-পত্রিকায় “সুতাভ্‌ভং” বলিয়া মুদ্রিত হইয়াছিল।

^(৭)  বসন্ততিলক।

^(৮)  স্রগ্ধরা। এই শ্লোকের “চিত্রাংশুকায়াঃ” পাঠ সাহিত্যপরিষৎ-পত্রিকায় ‘চিত্রাঙ্গকায়া’ বলিয়া মুদ্রিত হইয়াছে।

^(৯)  বসন্ততিলক।

^(১০)  মালিনী।

^(১১)  শিখরিণী। সাহিত্যপরিষৎ-পত্রিকায় “যোষাসঙ্গ”, এবং “সুতো” পাঠ মুদ্রিত হইয়াছে। তাহা “দোষাসঙ্গ” এবং “স্ততো” হইবে। আমগাছী-তাম্রশাসনের “হতধ্বান্ত” এই তাম্রশাসনে “গুণাগ্রাম্যা” হইয়াছে। [(১২): শার্দ্দূলবিক্রীড়িত।]

^(১৩)  উপজাতি।

^(১৪)  শার্দ্দূলবিক্রীড়িত। লিপিকর-প্রমাদে একটি অক্ষর পরিত্যক্ত হইয়াছে বলিয়া, এই শ্লোকের পাঠোদ্ধারে গোলযোগ ঘটিয়াছে। যেরূপ পাঠ আদ্যন্তের সহিত সামঞ্জস্য রক্ষা করিতে পারে, তাহা বন্ধনীমধ্যে সংযুক্ত হইল। প্রাচ্যবিদ্যামহার্ণব মহাশয় পরিষৎ-পত্রিকায় “বিভ্রৎস্ব” পাঠ হইতে পারে বলিয়া মন্তব্য লিপিবদ্ধ করিয়া, সোসাইটির পত্রিকায় পাঠ মুদ্রিত করিবার সময়ে, পাঠ-সংশোধনের চেষ্টায় “বিভ্রমভরান্ বিভ্রৎ সর্ব্বায়ুধানাং” পাঠ সংযুক্ত করিয়াছেন।

^(১৫)  শার্দ্দূলবিক্রীড়িত।

^(১৬)  বসন্ততিলক।

^(১৭)  শার্দ্দূলবিক্রীড়িত।

^(১৮)  মালিনী। এই শ্লোকের প্রকৃত পাঠ উদ্ধৃত করিতে অসমর্থ হইয়া, প্রাচ্যবিদ্যামহার্ণব মহাশয়, [পরিষৎ-পত্রিকায়] “ক্ষিতিমববমতাত” এবং [সোসাইটির পত্রিকায়] “ক্ষিতিমবরমতাত” পাঠ উদ্ধৃত করিয়াছেন। তাম্রপট্টে “ক্ষিতিমচরমতাত” স্পষ্ট উৎকীর্ণ রহিয়াছে।

প্রশস্তি-পরিচয় ও অনুবাদ-অংশের টীকা

  1. J. A. S. B. 1900.
  2. বৎসরের পরিবর্ত্তে ‘বচ্ছর’ কথা ব্যবহৃত হইয়াছে। প্রাকৃতে “বচ্ছর” শব্দই সাধু, উহা এখনও কথোপকথনে ব্যবহৃত হইতেছে।
  3. এই প্ৰশস্তির ১৩—১৯ শ্লোক নূতন। এই সকল শ্লোকে রচনা-কৌশলে যে সকল ঐতিহাসিক তথ্য ইঙ্গিতমাত্রে সূচিত বা ধ্বনিত হইয়াছে, সমসাময়িক ব্যক্তিবর্গের নিকট তাহা সুবিদিত থাকিলেও, এক্ষণে তাহার মর্ম্মোদ্ঘাটন করা কঠিন হইয়া পড়িয়াছে। সন্ধ্যাকরনন্দি-বিরচিত ‘রামচরিত’ কাব্যে [প্রথম অধ্যায়ে] দেখিতে পাওয়া যায়,—তৃতীয় বিগ্ৰহপালদেবের মহীপাল, শূরপাল এবং রামপাল নামক তিন পুত্র জন্মগ্রহণ করিয়াছিলেন। তন্মধ্যে রামপাল গুণগৌরবে সর্ব্বলোকসম্মত এবং সিংহাসনলাভের উপযুক্ত হইলেও, দুর্নীতিপরায়ণ মহীপাল তাঁহাকে কারারুদ্ধ করিয়া সিংহাসনে আরোহণ করিলে, বিদ্রোহ উপস্থিত হয়; এবং তাহাতে মহীপাল সিংহাসনচ্যুত হইবার পর, তাঁহার জনকভূমি [বরেন্দ্রী] কিয়ৎকালের জন্য কৈবর্ত্ত-রাজের করতলগত হইলে, রামপাল বহু ক্লেশে তাহার উদ্ধার সাধন করেন। ইহার পরিচয় দিবার জন্য ‘রামচরিতের’ ভূমিকায় মহামহোপাধ্যায় শ্রীযুক্ত হরপ্রসাদ শাস্ত্রী এম-এ লিখিয়াছেন,—“Mahipāla did not pay any head to the cautious advice of his ministers, he hastily collected a large but ill-disciplined force, and advanced to meet the enemy. His force was routed. The soldiers fled in disorder, and he was defeated and slain.” ‘রামচরিতের’ [১৷২২ শ্লোকের] টীকায় “পরলোকগতস্য” বলিয়াই মহীপালের কথা উল্লিখিত আছে। মূলে আছে—“লোকান্তরপ্রণয়িণো”। মহীপালের যুদ্ধে নিহত হইবার বিবরণ টীকাকারের এই ব্যাখ্যার উপরেই সংস্থাপিত। বরেন্দ্রমণ্ডলের প্রবাদ এই যে,—মহীপাল সন্ন্যাস গ্রহণ করিয়াছিলেন, লোকে সেই জন্য ‘মহীপালের গীত’ গান করিত। এই প্রশস্তি-শ্লোকে মহীপালের পরিণাম কিরূপ ভাবে সূচিত হইয়াছে, তাহা স্পষ্ট প্রতিভাত হয় না। “দ্বিজেশ-মৌলি”-শব্দে শ্লিষ্ট প্রয়োগের আভাস প্রাপ্ত হওয়া যায়। শিব-পক্ষে তাহার অর্থ সুগম; মহীপাল-পক্ষে অর্থ কি, তাহা স্পষ্ট প্রতিভাত হয় না। তিনি পরলোকগত হইয়া [শিবত্বলাভ করিয়াছিলেন] এরূপ অর্থে “শিববদ্বভূব” প্রযুক্ত হইয়া থাকিতে পারে। প্রশস্তিতে পরাভবের স্পষ্ট উল্লেখ থাকে না বলিয়াই, তাহা ইঙ্গিতে সূচিত হইয়া থাকিতে পারে।
  4. ‘সাহস মাত্রই যাঁহার সারথী’ এইরূপ অর্থে শূরপাল ‘সাহস-সারথী’ বলিয়া বর্ণিত হইয়াছেন। তিনি বরেন্দ্রমণ্ডল হইতে মগধে আশ্রয় লাভ করিয়াছিলেন। তদ্দেশেই তাঁহার শাসন-সময়ের প্রাচীন লিপি আবিষ্কৃত হইয়াছে;—বরেন্দ্রমণ্ডলে এ পর্য্যন্ত তাহা আবিষ্কৃত হয় নাই। বৈদ্যদেবের [কমৌলি-লিপিতে] শূরপালের নাম পর্য্যন্ত উল্লিখিত হয় নাই। সুতরাং শূরপাল অল্পকাল নামমাত্র রাজা ছিলেন বলিয়া বোধ হয়।
  5. গুণ-শব্দে দুইটি অর্থ ধ্বনিত হইয়াছে। সারথী-পক্ষে তাহার অর্থ—অশ্বচালনরজ্জু।
  6. শূরপালের অস্ত্রশস্ত্রের অভাব ছিল না, তাঁহার শত্রুবর্গের হৃদয়ে কেবল স্বাভাবিক বিভ্রমাতিশয্যই বর্ত্তমান ছিল। এই শ্লোকে এইরূপ আভাস প্রাপ্ত হওয়া যাইতে পারে।
  7. এই শ্লোকের “দিব্য-প্রজা” দুইটি ভিন্ন ভিন্ন অর্থে ব্যবহৃত হইয়াছে বলিয়াই বোধ হয়। কৈবর্ত্ত-বিদ্রোহের নায়ক “দিব্য” তৎকালে প্রসিদ্ধি লাভ করায়, অন্যান্য স্থলেও তাঁহার নাম ইঙ্গিতে উল্লিখিত হইয়াছে। সম্প্রতি ঢাকা জেলার বেলাব গ্রামে ভোজবর্ম্মদেবের যে তাম্রশাসন আবিষ্কৃত হইয়াছে, তাহাতেও এইভাবে “দিব্যের” নাম উল্লিখিত আছে। এই অর্থ গ্রহণ না করিলে, উভয় পক্ষের অর্থ সঙ্গতি রক্ষিত হইতে পারে না। “নির্ভর”-শব্দটির “অতিশয়ার্থ” সুবিদিত। জয়দেব [গীতগোবিন্দে] তাহার ব্যবহার করিয়া গিয়াছেন। যথা,—

    “रासोल्लासभरेण विभ्रमभृता माभीर वामभ्रुवा
    मभ्यर्णं परिरभ्य निर्भरमुरः प्रेमान्धया राधया।
    साधु तद्वदनं सुधामय मिति व्याहृत्य गीतस्तुति-
    व्याजादुद्भट-चुम्बितः स्मितमनोहारी हरिः पातु वः॥”

    রামপাল জন্মভূমি হইতে তাড়িত হইয়াও, কিরূপ ধৈর্য্যাবলম্বনে দীর্ঘকালের অধ্যবসায়ে জন্মভূমির [বরেন্দ্রীর] উদ্ধার-সাধন করিয়াছিলেন, “রামচরিত” কাব্যে তাহা বিস্তৃতভাবে উল্লিখিত আছে। সেই ঐতিহাসিক ঘটনা স্মরণ করিয়া, রাজকবি এই শ্লোকে ইঙ্গিতে তাহার পরিচয় দিবার অভিপ্রায়ে, ইন্দ্রের স্বর্গোদ্ধারের সহিত রামপালের কার্য্যের তুলনা করিতে গিয়া, এইরূপ রচনা-কৌশলের অবতারণা করিয়া থাকিতে পারেন।

  8. রামপালদেবের বরেন্দ্রভূমির উদ্ধারসাধন-চেষ্টায় কুমারপাল সেনানায়ক ছিলেন বলিয়া “রামচরিতে” উল্লেখ দেখিতে পাওয়া যায়। কুমারপালের শাসন-সময়েও, তাঁহার প্রধানমন্ত্রী বৈদ্যদেবের চেষ্টায় ‘অনুত্তর-বঙ্গে’ এবং ‘কামরূপে’ বিদ্রোহ-বিকার নিরাকৃত হইবার কথা [কমৌলি-লিপিতে] উল্লিখিত আছে। সুতরাং এই শ্লোকে রাজকবি তৎকালপ্রসিদ্ধ ঐতিহাসিক ঘটনা স্মরণ করিয়াই, কুমারপালের কীর্ত্তিকলাপের বর্ণনা করিয়াছেন।
  9. অমরকামিনীগণের কপোলবিন্যস্ত কর্পূর-পত্ৰলেখা উল্লিখিত হইয়াছে কেন, তাহা বোধগম্য হয় না। বীরকীর্ত্তির পুরস্কাররূপে, দেহাবসানের পর, কুমারপাল এইরূপ কীর্ত্তিলাভ করিয়া থাকিবেন।
  10. গোপালদেবের নাম রাজসাহীর অন্তর্গত মান্দায় প্রাপ্ত একখানি মাত্র প্রস্তর-লিপিতে দেখিতে পাওয়া গিয়াছে। এই শ্লোকের বর্ণনায় গোপালদেব শৈশবেই পরলোকগত হইবার আভাস প্রাপ্ত হওয়া যায়। রাজকবি তাঁহার বীরকীর্ত্তির উল্লেখ করেন নাই,—কেবল “উর্ব্বীভুজং” বলিয়াছেন।
  11. এই শ্লোকের ‘অচরম-তাত’ একটি দুর্লভ প্রয়োগ। অমরকোষের [৩৷১৷৮১] ‘চরম’-শব্দের ব্যাখ্যায় দেখিতে পাওয়া যায়,—

    “अन्तो जघन्यं चरम-मन्त्य-पाश्चात्य-पश्चिमम्।”

    ইহা হইতে [যাহার চরম নাই এই অর্থে] অচরমতাত-শব্দের কনিষ্ঠতাত-অর্থ অনুমিত হইতে পারে।