গ্রামে

নবীন প্রভাত-কনক-কিরণে,
নীরবে দাঁড়ায়ে গাছপালা,
কাপে মৃদু মৃদু কি যেন আরামে,
বায়ু বহে যায় সুধা-ঢালা।
নীল আকাশেতে নারিকেল তরু,
ধীরে ধীরে তার পাতা নড়ে,
প্রভাত আলােতে কুঁড়ে ঘরগুলি,
জলে ঢেউগুলি ওঠে পড়ে।
দুয়ারে বসিয়া তপন কিরণে
ছেলেরা মিলিয়া করে খেলা,
মনে হয় সব কি যেন কাহিনী
শুনেছিনু কোন্‌ ছেলেবেলা।
প্রভাতে যেনরে ঘরের বাহিরে
সে কালের পানে চেয়ে আছি,
পুরাতন দিন হােথা হতে এসে
উড়িয়ে বেড়ায় কাছাকাছি।

 

ঘর দ্বার সব মায়া ছায়া সম,
কাহিনীতে গাঁথা খেলা-ধূলি,
মধুর তপন, মধুর পবন
ছবির মতন কুঁড়েগুলি।
কেহবা দোলায় কেহবা দোলে
গাছতলে মিলে করে মেলা,
বাঁশি হাতে নিয়ে রাখাল বালক।
কেহ নাচে, গায়, করে খেলা।
এমনি যেনরে কেটে যায় দিন,
কারো যেন কোন কাজ নাই,
অসম্ভব যেন সকলি সম্ভব,
পেতেছে যেনরে যাহা চাই।
কেবলি যেনরে প্রভাত তপনে,
প্রভাত পবনে, প্রভাত স্বপনে,
বিরামে কাটায় আরামে ঘুমায়
গাছপালা, বন, কুঁড়েগুলি।
কাহিনীতে ঘেরা ছােট গ্রামখানি,
মায়াদেবীদের মায়া রাজধানী,
পৃথিবী বাহিরে কলপনা তীরে
করিছে যেনরে খেলা ধূলি।