প্রধান মেনু খুলুন

প্রথম যুগের উদয়দিগঙ্গনে
          প্রথম দিনের উষা নেমে এল যবে
     প্রকাশপিয়াসি ধরিত্রী বনে বনে
          শুধায়ে ফিরিল, সুর খুঁজে পাবে কবে।
               এসো এসো সেই নব সৃষ্টির কবি
               নবজাগরণ-যুগপ্রভাতের রবি।
          গান এনেছিলে নব ছন্দের তালে
          তরুণী উষার শিশিরস্নানের কালে,
               আলো-আঁধারের আনন্দবিপ্লবে।
     সে গান আজিও নানা রাগরাগিণীতে
     শুনাও তাহারে আগমনীসংগীতে
          যে জাগায় চোখে নূতন দেখার দেখা।
    যে এসে দাঁড়ায় ব্যাকুলিত ধরণীতে
     বননীলিমার পেলব সীমানাটিতে,
          বহু জনতার মাঝে অপূর্ব একা।
               অবাক আলোর লিপি যে বহিয়া আনে
               নিভৃত প্রহরে কবির চকিত প্রাণে,
               নব পরিচয়ে বিরহব্যথা যে হানে
          বিহ্বল প্রাতে সংগীতসৌরভে,
          দূর-আকাশের অরুণিম উৎসবে।
          যে জাগায় জাগে পূজার শঙ্খধ্বনি,
          বনের ছায়ায় লাগায় পরশমণি,
               যে জাগায় মোছে ধরার মনের কালি
               মুক্ত করে সে পূর্ণ মাধুরী-ডালি।
জাগে সুন্দর, জাগে নির্মল, জাগে আনন্দময়ী--
                   জাগে জড়ত্বজয়ী।
          জাগো সকলের সাথে
          আজি এ সুপ্রভাতে,
বিশ্বজনের প্রাঙ্গণতলে লহো আপনার স্থান--
     তোমার জীবনে সার্থক হোক
                   নিখিলের আহ্বান।

 
 
কালিম্পং,
২৫ বৈশাখ, ১৩৪৫