গৌড়লেখমালা (প্রথম স্তবক)/তৃতীয় বিগ্রহপালদেবের তাম্রশাসন


 

তৃতীয় বিগ্রহপালদেবের তাম্রশাসন।

[আমগাছি-লিপি]
প্ৰশস্তি-পরিচয়।

 ১৮০৬ খৃষ্টাব্দে দিনাজপুরের অন্তর্গত বাদালের [কোম্পানী-বাহাদুরের] কুঠীর প্রায় চৌদ্দ মাইল দূরবর্ত্তী [সুলতানপুরের অন্তর্গত] আমগাছি নামক একটি পুরাতন ইষ্টকাচ্ছাদিত পরিত্যক্ত আবিষ্কার-কাহিনী। স্থানে এক কৃষক মৃত্তিকা খনন করিতে গিয়া, এই তাম্রশাসন প্রাপ্ত হইয়া, পুলিশের হস্তে সমর্পণ করায়, ইহা দিনাজপুরের ম্যাজিষ্ট্রেট প্যাটল্ সাহেব কর্ত্তৃক কলিকাতার এসিয়াটিক্ সোসাইটিতে প্রেরিত হইয়াছিল;[১] এবং ইহার আবিষ্কার-কাহিনী সোসাইটির পত্রিকায়[২] প্রকাশিত হইয়াছিল। শাসনখানি তদবধি সোসাইটির পুস্তকালয়ে রক্ষিত হইতেছে।

 সুবিখ্যাত অধ্যাপক কোল্‌ব্রুক্ এই তাম্রশাসনের পাঠোদ্ধারে ব্যাপৃত হইয়াছিলেন। কিন্তু অক্ষর-বিলোপের জন্য, তিনি ইহার সম্পূর্ণ পাঠ উদ্ধৃত করিতে অশক্ত হইয়া, একটি আংশিক পাঠোদ্ধার-কাহিনী। বিবরণমাত্রই প্রকাশিত করিয়া গিয়াছিলেন। সোসাইটির শতবার্ষিকী বিবরণী প্রকাশিত করিবার সময়, অধ্যাপক হর্‌ণলি আর একবার পাঠোদ্ধার-সাধনের চেষ্টা করিয়াছিলেন। তিনি যতদূর কৃতকার্য্য হইয়াছিলেন, তাহাই মুদ্রিত হইয়াছিল।[৩] পরে এই শাসনলিপির পদ্যাংশের পাঠ অধ্যাপক কিল্‌হর্ণ কর্ত্তৃক উদ্ধৃত ও প্রকাশিত হইয়াছে।[৪] সম্পূর্ণ লিপির পাঠ এখনও প্রকাশিত হয় নাই।

 অধ্যাপক কোল্‌ব্রুক্ এবং অধ্যাপক হর্‌ণলি যতদূর পর্য্যন্ত পাঠোদ্ধারে কৃতকার্য্য হইয়াছিলেন, ততদূরই ব্যাখ্যা করিবার চেষ্টা করিয়া গিয়াছিলেন। বংশবিবৃতি-সূচক শ্লোকাবলীর মধ্যে অনেক ব্যাখ্যা-কাহিনী। শ্লোকই নারায়ণপালদেবের [ভাগলপুরে আবিষ্কৃত] এবং মহীপালদেবের [বাণগড়ে আবিষ্কৃত] তাম্রশাসন হইতে গৃহীত বলিয়া, ঐ দুইটি শাসন-লিপির সাহায্যে অধ্যাপক কিল্‌হর্ণ পদ্যাংশের একটি ব্যাখ্যা লিপিবদ্ধ করিয়া গিয়াছেন। এতদ্বারা কাহাকে ভূমিদান করা হইয়াছিল, তাহা নির্ণীত হইতে পারে নাই; “দূতকের” পরিচয়ও উদ্ঘাটিত হইতে পারে নাই। অধ্যাপক কোল্‌ব্রুক্ ইহাকে “দ্বাদশ সংবৎসরের লিপি” বলিয়া এবং অধ্যাপক কিল্‌হর্ণ “দ্বাদশ বা ত্রয়োদশ সংবৎসরের লিপি” বলিয়া অভিপ্রায় প্রকাশিত করিয়া গিয়াছেন।

 এই তাম্রপট্টখানির আয়তন ১৪ / × ১২ / ইঞ্চ। প্রথম পৃষ্ঠে ৩৩ পংক্তিতে এবং অপর পৃষ্ঠে ১৬ পংক্তিতে সংস্কৃতভাষা-নিবদ্ধ পদ্যগদ্যাত্মক লিপি উৎকীর্ণ হইয়াছিল। কিন্তু কালপ্রভাবে ইহার লিপি-পরিচয়। উভয় পৃষ্ঠের অক্ষরাবলীই অল্পাধিক পরিমাণে বিলুপ্ত হইয়া গিয়াছে। ইহাতে যে রাজমুদ্রা সংযুক্ত আছে,—তাহার মধ্যস্থলে “শ্রীবিগ্রহপালদেব স্পষ্টাক্ষারে উৎকীর্ণ রহিয়াছে। ইহার একটি প্রতিলিপি তুলিয়া লইয়া, ফ্লিট্‌ সাহেব অধ্যাপক কিল্‌হর্ণের নিকট প্রেরণ করায়, তদবলম্বনেই ইহার পাঠোদ্ধার সাধিত হইয়াছে। গদ্যাংশের পাঠ অন্যান্য তাম্রশাসনের সাহায্যে উদ্ধৃত হইতে পারে। শ্রীযুক্ত রাখালদাস বন্দ্যোপাধ্যায় এম-এ তাহা প্রকাশিত করিবার জন্য চেষ্টা করিতেছেন।

 নয়পালদেব-পাদানুধ্যাত [২৩-২৪ পংক্তি] বিগ্রহপালদেব তদীয় বিজয়-রাজ্যের ১২ বা ১৩ সংবৎসরের ৯ চৈত্রদিনে [৪২ পংক্তি] পুণ্ড্রবর্দ্ধনভুক্তির অন্তর্গত কোটিবর্ষ-বিষয়ে [২৪ পংক্তি] লিপি-বিবরণ। এক ব্রাহ্মণকে ভূমিদান করিয়াছিলেন।[৫] ইহাতে গ্রহীতার নাম এবং বংশ-পরিচয় উল্লিখিত ছিল, যে জয়স্কন্ধাবার হইতে এই দানপত্র প্রদত্ত হইয়াছিল, তাহার নামও উল্লিখিত ছিল।[৬] কিন্তু অক্ষর-বিলোপ তাহার পাঠোদ্ধার সাধন করা কঠিন হইয়া পড়িয়াছে। মহীপালদেবের [বাণগড়ে আবিষ্কৃত] তাম্রশাসনখানি পোসলী-গ্রামাগত মহীধর শিল্পিকর্ত্তৃক উৎকীর্ণ হইয়াছিল। বিগ্রহপালদেবের এই তাম্রশাসনও পোসলী-গ্রামাগত মহীধরশিল্লির পুত্র শশিদেব কর্ত্তৃক উৎকীর্ণ হইয়াছিল বলিয়া [৪৯ পংক্তি] উল্লিখিত আছে। যথা,—

पोसलीग्राम-निर्यात-श्रीमहीधर-सूनुना।
इदं शासन मुत्कीर्ण्णं शशिदे[वेन शिल्पिना]॥

 

 

প্রশস্তি-পাঠ।

ॐ स्वस्ति॥
मैत्रीं का[रुण्य]-रत्न-प्रमुदित-हृदयः प्रेयसीं सन्दधानः
[स]म्यक् सम्बो[धि-वि]द्या-सरिदमल-[जल-क्षा]लिताज्ञान-प-
ङ्कः।
जित्वा यः काम-कारि-प्रभव मभिभवं शाश्वती[ं]
प्राप शान्ति[म्]
स श्रीमाँल्लोकनाथो जयति द[श]बलोऽन्यश्च
गोपालदेवः(১)
लक्ष्मी‑जन्मनिकेतनं समकरो वोढ़ुं क्षमः क्ष्माभरं
पक्षच्छेदभया दुपस्थितवता मेकाश्रयो भूभृत[ा]म्।
[मर्य्य]ादा-परिपालनैक-निरतः सौ(शौ)र्य्य[ा]
लयोऽस्मादभू-
द्दुग्धाम्भोधि-विलास-हासिमहिमा श्रीधर्म्मपालो नृपः॥(২)
रामस्येव गृहीत-सत्यतपस स्तस्यानुरूपो गुणैः
सौमित्रे रुदपादि तुल्य-
[महिमा वाक्‌पाल-]नामानुजः।
यः श्रीमान्नय-विक्रमैक-वसति र्भ्रातुः स्थितः शासने
शून्याः शत्रु-पताकिनीभि रकरोदेकातपत्रा दिशः॥(৩)
तस्मादु-
[पेन्द्र-चरितै र्ज्जगती] म्पुनानः
पुत्रो बभूव विजयी जयपालनामा।
धर्म्मद्विषां शमयिता युधि देवपाले

यः पूर्व्वजे भुवन-राज्य-सुखान्यनैषीत्॥(৪)
श्रीमा-
[न्वि]ग्रहपाल स्तत्सूनु रजातशत्रु रिव जातः।
शत्रुवनिता-प्रसाधन-विलोपि-विमलासि-जलधारः॥(৫)
दिक्पालैः क्षितिपालनाय दधतं देहे विभ-
१० [क्तान् गु]णान्
श्रीमन्तञ्जनयाम्बभूव तनयं नारायणं स प्रभुं।
यः क्षोणीपतिभिः शिरोमणि-रुचा-श्लिष्टाङ्घ्रि-पीठोपलं
न्यायोपात्त मलञ्चकार चरितैः
११ [स्वै]रेव धर्म्मासनम्॥(৬)
तोयाशयै र्जलधिमूल-गभीरगर्भै-
र्देवालयैश्च कुलभूधर-तुल्यकक्षैः।
विख्यात-कीर्त्ति रभवत्तनयश्च तस्य
श्रीराज्यपाल इ-
१२ ति [मध्य]-म-लोकपालः॥(৭)
तस्मात् पूर्व्वक्षितिध्रान्निधिरिव महसां राष्ट्रकूटान्वयेन्दो-
स्तुङ्गस्योत्तुङ्गमौले र्दुहितरि तनयो भाग्यदेव्यां प्रसूतः।
श्रीमा-
१३ [न् गोपाल] देव श्चिरतरमवने रेकपत्न्या इवैको
भर्त्ताभून्नैकरत्न-द्युतिखचित-चतुःसिन्धु-चित्रांशुकायाः॥(৮)

यं स्वामिनं राजगुणै रनून मासेवते चा-
१४ [रु-त]रानुरक्ता।
उत्साइ-मन्त्र-प्रभुशक्ति-लक्ष्मीः पृथ्वीं सपत्नीमिव शीलयन्ती(৯)
तस्माद्बभूव सवितु र्वसुकोटिवर्षी
कालेन चन्द्र इव विग्रहपालदेव
१५ ः।
[नेत्र]प्रियेण विमलेन कलामयेन
येनोदितेन दलितो भुवनस्य तापः॥(১০)
हतसकलविपक्षः सङ्गरे बाहुदर्पा-
दनधिकृत-विलुप्तं राज्य मासाद्य पित्र्यम्।
१६ [निहित]-चरणपद्मो भूभृतां मूर्द्ध्नि तस्मा-
दभवदवनिपालः श्रीमहीपालदेवः(১১)
त्यजन् दोषासङ्गं शिरसि कृतपादः क्षितिभृतां
वितन्वन् सर्व्वाशाः प्रसभ-
१७ मुदयाद्रे रिव रविः।
हतध्वान्त-स्निग्धप्रकृति रनुरागैकवसति-
स्ततो धन्यः पुण्यै रजनि नयपालो नरपतिः॥(১২)
पीतः सज्जन-लोचनैः स्मररिपोः पूजा-
१८ [नुरक्तः सदा]
संग्रामे [चतुरो]ऽधिक[ञ्च] हरितः कालः कुले विद्विषां।
चातुर्व्वर्ण्य-समाश्रयः सितयश[ः पुञ्जै]र्ज्जगद्रञ्जयन्
श्रीमद्विग्रहपालदेव-नृपति-
१९ [र्जज्ञे ततो धामभृत्?](১৩)
देशे प्राचि प्रचुर-पयसि स्वच्छ मापीय तोयं

स्वैरं भ्रान्त्वा तदनु मलयोपत्यका-चन्दनेषु।
कृत्वा सान्द्रै स्तरुषु जड़तां शीकरै र-
२० [भ्र-तुल्याः]
[प्राले]याद्रेः कटक मभजन् यस्य सेना-गजेन्द्राः॥(১৪)


 

বঙ্গানুবাদ।

(১২)

 [দোষার] রজনীর[৭] সঙ্গ পরিত্যাগ করিয়া, পর্ব্বত-শিখরে পদবিন্যাস করিয়া, সকল দিকে কিরণ বিতরণ করিয়া, সূর্য্যদেব যেমন উদয়াচল হইতে উদিত হইয়া থাকেন; সেইরূপ দোষের সঙ্গ পরিত্যাগ করিয়া, সমস্ত সামন্ত-নরপালগণের মস্তকে পদবিন্যাস করিয়া, সকল দিকেই প্রতাপ বিস্তৃত করিয়া, অজ্ঞানান্ধকার-বিনাশী স্নিগ্ধপ্রকৃতি লোকানুরাগভাজন নয়পাল নামক নরপতি সেই [পূর্ব্ব শ্লোকোক্ত] নরপালের পুণ্যবলে জন্মগ্রহণ করিয়াছিলেন।

(১৩)

 তাঁহা হইতে তেজস্বী বিগ্রহপালদেব [নামক] নৃপতি জন্মগ্রহণ করিয়াছিলেন। দেখিবার আগ্রহে, সজ্জনগণ তাঁহাকে যেন লোচনপুটে পান করিতেন[৮]। নিয়ত স্মররিপু-পূজানুরক্ত,[৯] শত্রুকুল-কালরুদ্র, বিষ্ণু অপেক্ষাও অধিক সংগ্রাম-চতুর, বর্ণাশ্রমের আশ্রয়স্থল, এই রাজা স্বকীয় শুভ্র যশঃপ্রভায় জগৎকে সুরঞ্জিত করিয়াছিলেন।

মূলপাঠের টীকা

^(১)  স্রগ্ধরা।

^(২)  শাৰ্দ্দূল-বিক্রীড়িত।

^(৩)  শাৰ্দ্দূল-বিক্রীড়িত।

^(৪)  বসন্ততিলক। এই শ্লোকে ডাক্তার হর্‌ণলি “পূর্ব্বজো” পাঠ উদ্ধৃত করিয়া, জয়পালকেই দেবপালের জ্যেষ্ঠ ভ্রাতা বলিয়া স্থির করিতে চাহিয়াছিলেন। তাম্রপট্টে প্রথমে “পূর্ব্বজো” উৎকীর্ণ হইয়াছিল; পরে সংশোধিত হইবার চিহ্ন দেখিতে পাওয়া যায়।

^(৫)  আর্য্যা।

^(৬)  শার্দ্দূলবিক্রীড়িত।

^(৭)  বসন্ততিলক।

^(৮)  স্রগ্ধরা।

^(৯)  ইন্দ্রবজ্রা।

^(১০)  বসন্ততিলক।

^(১১)  মালিনী।

^(১২)  শিখরিণী। সাহিত্যপরিষৎ-পত্রিকায় এই শ্লোকের “দোষাসঙ্গ” পাঠ “যোষাসঙ্গ” রূপে উদ্ধৃত হইয়াছে।

প্রশস্তি-পরিচয় ও অনুবাদ-অংশের টীকা

  1. Colebrooke’s Miscellaneous Essays. Vol. II, p. 279.
  2. Asiatic Researches, Vol. IX, pp. 434-438.
  3. Centenary Review, Part II, pp. 210-213, and Indian Antiquary, Vol. XIV, pp. 166-168.
  4. Indian Antiquary, Vol. XXI, pp. 97-101.
  5. এই তাম্রশাসনোক্ত দানপত্র (৪০ পংক্তি] একটি চন্দ্রগ্রহণোপলক্ষে গঙ্গাস্নানান্তে প্রদত্ত হইয়াছিল বলিয়া অধ্যাপক কিল্‌হর্ণ পরিচয় প্রদান করিয়া গিয়াছেন।
  6. অধ্যাপক হর্‌ণলি [২৩ পংক্তিতে] “শ্রীমুদ্গগিরি” বলিয়া জয়স্কন্ধাবারের নাম উদ্ধৃত করিয়াছিলেন। অধ্যাপক কিল্‌হর্ণ লিখিয়া গিয়াছেন—“In the prose portion which follows (lines 20-42) the King—from his camp of victory pitched at a place which was not Mudgagiri, but which is spoken of exactly as Mudgagiri in the Bhagalpur plate —informs the people &c.”
  7. এই শ্লোকে সূর্য্যদেবের সহিত তুলনা করিবার জন্য, কবি “প্রত্যক্ষর-শ্লেষের” অবতারণা করিয়া গিয়াছেন। সূর্য্য-পক্ষে “দোষা-সঙ্গ” রজনীর সঙ্গকে; রাজপক্ষে “দোষ-আসঙ্গ” দোষাসক্তিকে; সূর্য্য-পক্ষে “ক্ষিতিভৃৎ” পর্ব্বতকে; রাজপক্ষে সামন্ত-রাজগণকে; সূর্য্য-পক্ষে “প্রসভ” অন্ধকার-বিনাশী কিরণ-বিকাশকে; রাজপক্ষে বাহুবলকে সূচিত করিতেছে। “গৌড়ের ইতিহাসে” [১২৮ পৃষ্ঠায়] “দোষাসঙ্গ” পাঠ “যোষাসঙ্গ” বলিয়া উদ্ধৃত হইয়াছে। রজনীর নাম “দোষা” সংস্কৃত সাহিত্যে সুপরিচিত। এক সময়ে দোষা-শব্দের ব্যবহার প্রচলিত ছিল। আর্য্যাসপ্তশতীর [২৯৮] “दोषा अपि भूषायै गणिकायाः शशिकलायाश्च” এবং মাঘের [৪৷৪৬] “दोषापि नून महिमांशुरसौ किलेति व्याकोश-कोकनदतां दधते नलिन्यः” উল্লেখযোগ্য। চন্দ্রের নাম “दोषाकर”, প্রদীপের নাম “दोषा-तिलक”।
  8. এইরূপ রচনা-কৌশল, কালিদাসের রচনা-কৌশলের অনুকরণ বলিয়া কথিত হইতে পারে।
  9. মহাদেব এবং বুদ্ধদেব উভয়েই “স্মররিপু” বলিয়া কথিত। এই তাম্রশাসন [৩৬ পংক্তি] “भगवन्तं बुद्ध-भट्टारकमुद्दिश्य” প্রদত্ত হইয়াছিল; সুতরাং এখানে “স্মররিপু-পূজানুরক্ত”-বিশেষণটিকে রাজার বৌদ্ধমত-বিজ্ঞাপক বলিয়াই স্বীকার করিতে হইবে। “चातुर्व्वर्ण्य-समाश्रयः” এই বিশেষণপদ বিগ্রহপালদেবের বৌদ্ধমতানুরাগের বিরোধী বলিয়া গৃহীত হইতে পারে না। ধর্ম্মপালদেবও বর্ণাশ্রমধর্ম্মের আশ্রয় বলিয়া, দেবপালদেবের তাম্রশাসনে, উল্লিখিত।