হাস্যকৌতুক (১৯৪৬)

হাস্যকৌতুক

হাস্যকৌতুক

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

Visva-Bharati University logo.svg

বিশ্বভারতী গ্রন্থালয়

২ বঙ্কিম চাটুজ্যে স্ট্রীট, কলিকাতা



প্রকাশ ১৩১৪
পুনর্মুদ্রণ ১৩১৪, ফাল্গুন ১৩৩৯, ভাদ্র ১৩৪৬
ভাদ্র ১৩৫৩

পাঁচ সিকা


প্রকাশক শ্রীপুলিনবিহারী সেন
বিশ্বভারতী, ৬।৩ দ্বারকানাথ ঠাকুর লেন, কলিকাতা

মুদ্রাকর শ্রীসূর্যনারায়ণ ভট্টাচার্য
তাপসী প্রেস, ৩০ কর্নওআলিস স্ট্রীট, কলিকাতা



নাট্যকৌতুক

 এই ক্ষুদ্র কৌতুকনাট্যগুলি হেঁয়ালিনাট্য নাম ধরিয়া “বালক” ও “ভারতী”তে বাহির হইয়াছিল। যুরোপে শারাড্ (Charade) নামক একপ্রকার নাট্যলেখা প্রচলিত আছে, কতকটা তাহারই অনুকরণে এগুলি লেখা হয়। ইহার মধ্যে হেঁয়ালি রক্ষা করিতে গিয়া লেখা সংকুচিত করিতে হইয়াছিল— আশা করি সেই হেঁয়ালির সন্ধান করিতে বর্তমান পাঠকগণ অনাবশ্যক কষ্ট স্বীকার করিবেন না। এই হেঁয়ালিনাট্যের কয়েকটি বিশেষভাবে বালকদিগকেই আমোদ দিবার জন্য লিখিত হইয়াছিল।

সূচীপত্র
ছাত্রের পরীক্ষা
পেটে ও পিঠে
অভ্যর্থনা ১১
রোগের চিকিৎসা ১৬
চিন্তাশীল ২৩
ভাব ও অভাব ২৮
রোগীর বন্ধু ৩২
খ্যাতির বিড়ম্বনা ৩৬
আর্য ও অনার্য ৪৭
একান্নবর্তী ৫৪
সূক্ষ্ম বিচার ৬১
আশ্রমপীড়া ৬৭
অন্ত্যেষ্টি-সৎকার ৭৭
রসিক ৮২
গুরুবাক্য ৮৭

এই লেখাটি বর্তমানে পাবলিক ডোমেইনের আওতাভুক্ত কারণ এটির উৎসস্থল ভারত এবং ভারতীয় কপিরাইট আইন, ১৯৫৭ অনুসারে এর কপিরাইট মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়েছে। লেখকের মৃত্যুর ৬০ বছর পর (স্বনামে ও জীবদ্দশায় প্রকাশিত) বা প্রথম প্রকাশের ৬০ বছর পর (বেনামে বা ছদ্মনামে এবং মরণোত্তর প্রকাশিত) পঞ্জিকাবর্ষের সূচনা থেকে তাঁর সকল রচনার কপিরাইটের মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়ে যায়। অর্থাৎ ২০২১ সালে, ১ জানুয়ারি ১৯৬১ সালের পূর্বে প্রকাশিত (বা পূর্বে মৃত লেখকের) সকল রচনা পাবলিক ডোমেইনের আওতাভুক্ত হবে।